ওয়েবসাইটের গুরুত্ব, Importance of website

ব্যবসায় সফল হতে একটি ওয়েবসাইটের গুরুত্ব

একটি ওয়েবসাইটের গুরুত্বঃ

বর্তমান ডিজিটাল যুগে একটি ওয়েবসাইটই হতে পারে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এর জন্য সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ একটি মাধ্যম। অনেক ছোট ছোট ব্যবসা প্রতিষ্টান বা যেসব ব্যবসায় প্রতিষ্টান নতুন তৈরি হয়েছে তারা তাদের ব্যবসা সচল করা বা প্রসারিত করার জন্য প্রয়োজনীয় এবং জরুরি বিষয়গুলোর উপর প্রধান্য দিয়ে থাকে। যখন যতটা প্রয়োজন ক্রমাগতভাবে টাকা ব্যায় করতেই থাকে। অথচ ছোট ব্যবসায়িরা কেন তারা তাদের একটা ওয়েবসা্ইট থাকা কে বিলাসিতা বা অপ্রয়োজনীয় মনে করছে। তারা মনে করছে সেটা ছারাই তাদের ব্যবসা চালিয়ে যেতে সক্ষম হবে। এমনকি তারা মনে করে অনলাইনে তাদের প্রডাক্ট উপস্তাপন করার জন্য ফেসবুক-ই যথেষ্ঠ, মনে করে মোবাইলে ফোন বা কিছু ই-মেইল পাঠালেই তাদের প্রডাক্ট বিক্রয় করতে সাহায্য করতে পারে। আর আমাদের বাংলাদেশে এই প্রবনতাটা আরও অনেক বেশি। বর্তমান যুগ ইন্টারনেট এর যুগ এইটা এখনো অনেক প্রতিষ্টান বুঝতে চায় না। কিন্তু বাস্তব কথা হচ্ছে, একটি ব্যবসাকে উপস্থাপন করার জন্য এক মাত্র উপায় হচ্ছে্ একটি প্রফেশনাল ওয়েবসাইট তৈরি করা।তাই আজ ধাপে ধাপে বর্ননা করব আপনার প্রতিষ্টানে একটি ওয়েবসাইটের গুরুত্ব কতটা বেশি:-

ওয়েবসাইটের গুরুত্ব, Importance of website

একটি কার্যকর ওয়েবসাইট আপনার প্রতিষ্টানের মূল ভিত্তিঃ

একটি ওয়েবসাইট কোম্পানির গুরুত্তপূর্ণ তথ্য বহন করে এবং একজন কাস্টমার জানতে পারে আপনার কাছে কি আছে বা আপনি কি সেবা প্রদান করেন। আপনার ওয়েবসাইট আপনার কোম্পানির একটি প্রবেশ পথ হিসেবে কাজ করে, এর মাধ্যেমে কাস্টমার আপনার কোম্পানির তথ্য বেশি বেশি বুঝতে পারে বা জানতে পারে, প্রডাক্ট সম্পর্কে গবেষনা করতে পারে এবং তারপর তারা সিদ্ধান্ত নিতে পারে পরবর্তিতে আপনার সাথে তাদের কাজ চালিয়ে যাবে কিনা। আপনি যদি ছোট ব্যবসায়ী হন আপনার অনুধাবন করা প্রয়োজন যে একটি ওয়েবসাইট থাকা মানে ব্যায়বহুল বিলাষিতা বা অসম্ভব কোন প্রচেষ্টা নয়- এটি অত্যান্ত সাশ্রয়ী মূল্যের, হতে পারে আপনার প্রতিষ্টানের এটি একটি মৌলিক যন্ত্র যেটি প্রতিটা প্রতিষ্টানেরই প্রয়োজন।

একটি ওয়েবসাইট কোম্পানির মার্কেটিং এ কতটা গুরুত্ব?

আপনার বিজনেস কার্ড তৈরি বা বিজ্ঞাপন এর উপর ব্যায় করার পূর্বে আপনার টাকা ব্যায় করা প্রয়োজন একটি ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য । একটি ওয়েবসাইটই আপনার বিজ্ঞাপনের সকল প্রচেষ্টার নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হিসেবে কাজ করবে।কারন বর্তমান ইন্টারনেট এর যুগে ব্যাস্ততা আর সময়ের অভাবে সবাই কোন পণ্য বা সেবা গ্রহন করার জন্য সব ধরনের তথ্য ইন্টারনেটেই প্রথম খুজে। আর ইন্টারনেটে তথ্য পাওয়াটা খুব সহজ এবং খুব কম সময়ে সেটা সম্ভব। আর সেই তথ্য যদি আপানার ওয়েবসাইটে থাকে তাহলে বুঝতেই পারছেন কি পাবেন আপনি। তাই একটা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ব্যবসার বিশদ বর্ননা, পন্যের তথ্য, উপাত্য গুলো আপনার ওয়েবসাইটে রাখুন তারপর মার্কেটিং এর বিষয়গুলো তৈরি করেও আপনার ওয়েবসাইটে সংরক্ষন করুন । এতে করে কাস্টমার আপনার ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে আপনার কোম্পানির অতিরিক্ত তথ্য পেয়ে যাবে খুব সহজেই।

নতুন নতুন কাস্টমারদের সাথে সংযোগ স্থাপনে ওয়েবসাইটের ভূমিকাঃ

যদিও ইতিমধ্যে আপনার প্রতিষ্ঠিত কাস্টমার অনেক থাকতে পারে, তারপরও একটি ওয়েবসাইট নতুন নতুন কাস্টমার সৃষ্টি করার ক্ষেত্রে সফলতারসাথে কাজ করে। পূর্বে যারা আপনার কোম্পানি সম্পর্কে কিছুই জানত না, তারা খুব সহজেই আপনার ওয়েবসাইট থেকে আপনার কোম্পানি সম্পর্কে জানতে পারবে।

বর্তমানকালে যখনই কোন ব্যক্তি কোন সমস্যায় পড়ে বা কোন কিছু জানার প্রয়োজন পড়ে তারা ইন্টারনেটের দারস্থ হয় এবং তারা তাদের প্রত্যাশিত জিনিসগুলো ইন্টারনেটেই খুজতে থাকে । আর এক্ষেত্রে যদি আপনার ওয়েবসাইটে তার প্রত্যাশিত বা প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো থাকে তাহলে সে খুব সহজেই আপনার সাইটে ঢুকে পরবে। এভাবেই ওয়েবসাইটি আপনার কোম্পানিকে কাস্টমারদের কাছে উপস্থাপন করবে এবং নতুন নতুন কাস্টমার তৈরি করতে ভালভাবে সাহায্য করবে। 

কোম্পানির পন্য বা সেবা বিক্রি করতে ওয়েবসাইটের অবদানঃ

কোম্পানির নতুন নতুন অফার বা নতুন নতুন পন্য শেয়ার এর মাধ্যমে, একটি ওয়েবসাইট আপনার কোম্পানির ডিজিটাল প্রচারপত্র হিসেবে কাজ করবে। একটি ওয়েবসাইট তৈরির অন্যতম সুবিধা হচ্ছে যে আপনার কোম্পানি সম্পর্কে বা কোম্পানির পণ্যের তথ্য সঠিক সময়ে আপডেট বা পরির্বতন করতে পারছেন খুব সহজেই। টাকা পরিশোধ করে আপনাকে কোন প্রিন্ট মিডিয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হচ্ছে না এবং পন্যের দাম আপনি সঠিক ভাবে কাস্টমারকে জানাতে আপনার কোন রকম ঝামেলা থাকছে না। তাছাড়া আপনি চাইলে ওয়েবসাইট এর মাধ্যমেই আপনার পন্য বিক্রয় করতে পারবেন খুব সহজেই।

কাস্টমারকে একটি ওয়েবসাইটই দিতে পারে পূর্ণাঙ্গ গাইডলাইনঃ

একটি ওয়েবসাইট আপনার কোম্পনির ২৪ ঘন্টার একজন প্রিয় কর্মচারী হিসেবে কাজ করবে। এটি অসংখ্য কাস্টমারকে বার বার প্রশ্নের উত্তর দিয়ে চলছে এমন কি বিক্রয়ের মত প্রক্রিয়াগুলো সম্পূর্ণ করছে। ই-কমার্স এবং ক্রয় অপশন সংযুক্ত ওয়েবসাইটগুলোতে কাস্টমার সরাসরি তাদের পছন্দের পন্য ক্রয় করতে পারছে খুব সহজেই। আর এভাবেই একটি ওয়েবসাইট ক্রেতা এবং কোম্পানির মাঝে সম্পর্ক গড়ে তুলছে এবং কাজকে সহজ করছে।

লোকাল ব্যাবসায়িদের জন্যও একটি ওয়েবসাইট হতে পারে বিশাল সহায়কঃ

ওয়েবসাইট সম্পর্কে প্রচলিত একটি ভুল ধারনা আছে যে ওয়েবসাইট শুধমাত্র বহুজাতিক বা বিশ্বব্যাপী কর্পোরেশনের জন্য ব্যবহার করা হয়। কিন্তু সত্যিকার অর্থে, একটি ওয়েবসাইট সহায়ক হতে পারে লোকাল ব্যাবসায়িদের জন্যও। বস্তুত পক্ষে, স্থানিয়দের সাথে সংযোগ স্থাপন করার জন্য এটা অনেক বড় ভুমিকা পালন করে। একটা হিসেবে দেখা গেছে আমেরিকার ৭০% মানুষ তাদের স্থানীয় পন্য কেনা কাটার জন্য তারা ইন্টারনেট ব্যবহার করে। সার্চইন্জিন সব সময়ই তার সার্চের রেজাল্ট দেখায় লোকাল স্থান অনুসারে। যেমন আপনার জুতা কেনার প্রয়োজন কিন্তু আপনি জানেন না আপনার আশেপাশে কোথায় জুতার দোকান আছে, তখন আপনি গুগোলে সার্চ দেন এভাবে “shoe stores near me,” তাহলে দেখবেন গুগোল সার্চ আপনাকে অবশ্যই আমেরিকার জুতার দোকান দেখাবে না যদি না আপনার লোকেশন আমেরিকা হয়। আপনাকে অবশ্যই আপনার কাছাকাছি যে জুতার দোকান আছে সেটাই দেথাবে। তাহলে অনেকটা পরিস্কার হয়েছেন যে ছোট ব্যাবসায়িদের জন্যও অনলাইনে পণ্য উপস্থাপন করার অনেক বড় উপকারিতা রয়েছে । আপনি কোথায় আছেন সেটা ব্যাপার না, আপনার ওয়েবসাইটই আপনার কাস্টমার টেনে আনবে।

একটি ওয়েবসাইট বারাতে পারে আপনার কোম্পনির বিশ্বাসযোগ্যতাঃ

যেটা খুজে পাওয়া যায় না সেটার কখনোই মূল্য বা গুরুত্ব থাকে না। আপনার যদি প্রতিষ্ঠিত অনলাইন পরিচিতি না থাকে, তাহলে কাস্টমার আপনার কোম্পানিকে কখনোই খুজে পাবে না। আপনার কোম্পানি যদি সার্চইন্জিনে বা গুগলে না দেখায় তাহলে এটি হবে আপনার কোম্পানির বিশ্বাসযোগ্যতা হারানের দ্রুততম উপায় বা কারন। এটি আপনার কোম্পানিকে পেছনে ফেলে দিবে, অবিশ্বাসযোগ্য করে তুলবে ধিরে ধিরে। এমনকি আপনি যদি মৌখিক মার্কেটিং করার ক্ষেত্রে অনেক দক্ষ হন, তারপরও অন্যের প্রচারনা থেকে হারিয়ে যাবেন ওয়েবসাইট না থাকার জন্য। সন্তুষ্টত কাস্টমার খুব দ্রতই শেয়ার করবে তারা আপনার কোম্পনি সম্পর্কে যা জানে। কিন্তু তাদের পরিচিতরা আপনার কোম্পানি সম্পর্কে কিছুই জানে না তাদের ব্যাপারটা কি হবে? অবশ্যই তারা ইন্টারনেটের সাহায্য নিবেই জানার জন্য। এবং যখন তারা খালি হাতে ফিরবে, তখন অবশ্যই আপনি নতুন কাস্টমার পাবার ক্ষেত্রে আপনার সুযোগ হারালেন বা অবশ্যই হারাবেন।

ব্যবসায় ভরসা বারাতে শেষ কিছু কথাঃ

অনেক ছোট ব্যবসায়িরা থার্ডপার্টির প্রচার মাধ্যমের উপর নির্ভর করে থাকে বা তারা নিজেদের ওয়েবসাইট তৈরি করা থেকে বিরত থাকে। কারন তারা মনে করে এটা পরিচালনা করা অনেক কঠিন কাজ এবং ব্যয় হবে অনেক। কিন্তু একটা ওয়েবসাইট তৈরি করা বা পরিচালনা করা অনেক বেশি সহজ অনেক সস্তা । এমনকি আপনার যদি টেকনিক্যাল জ্ঞান নাও থাকে, তারপরও একটি  ওয়েবসাইট আপনি ব্যবহার করতে পারবেন।

আমার মনে হয় এই লেখাগুলোর মাধ্যমে ছোট ব্যবসায়িরা তাদের ভুল থেকে বের হয়ে আসবে। আপনারা যদি এখনি সিদ্ধান্ত নেন একটি ওয়েবসাইট তৈরি করার তার মানে আপনি আপনার ব্যবাসাকে প্রমোট করছেন।তাই এখনি সময় আপনার প্রতিষ্টানের ওয়েবসাইট তৈরি করার।

খুব কম খরচে নিয়ে নিন আপনার ওয়েবসাইটঃ

যদি আপনি সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন আপনি একটি ওয়েবসাইট বানাবেন, আপনার প্রতিষ্ঠান বা ব্যবসার জন্য যেটা আসলেই আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় একটি সিদ্ধান্ত । আর আপনার এই সঠিক সিদ্ধান্ত কে সফল করতে বাংলাদেশে একমাত্র জু ইনফো টেক ই দিচ্ছে সব থেকে কম খরচে সম্পূর্ণ প্রফেশনাল ওয়েবসাইট বানানোর সুবিধা। সাথে থাকছে এক বছরের ডোমেইন এবং হোস্টিং একদম  ফ্রী । সাথে থাকছে ডিজিটাল মার্কেটিং সহ আরও অনেক সুবিধা ।

ওয়েবসাইটের গুরুত্ব, Importance of website

বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করুনঃ

অফিসঃ Happy Arcade Shopping Mall, 2nd FLR

Suite 34, Holding 3 Rd No. 3, Dhanmondi, Dhaka 1205

ফোনঃ ০১৭১৮০০০০২৯ / ০১৯৭৮৫৬৯২৯৭ – ৯৯

ইমেইলঃ [email protected] / [email protected]

ওয়েবসাইট: www.zooinfotech.com

সোশ্যাল মিডিয়াঃ Facebook | Linkedin

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.